মসজিদে নব্বীতে মিলাদ মাহফিল

20 12 2009

Advertisements




তারাবিহ্’র নামাজ ৮ রাকাত না ২০ রাকাত

23 08 2009

অনেক লোকদের থেকে প্রায় সময় শুনতে পাওয়া যায় যে, মক্কা ও মদীনা শরিফে মিলাদ নেই, মক্কা ও মদীনা শরিফে শবে বরাত নেই তাহলে আমরা করবো কেন..?। ইত্যাদি। আবার রমযান মাসে তারা বলে যে তারাবিহ নামাজ ৮ রাকাত ২০ রাকাত নয়। এই লোকেরা স্পষ্ঠভাবে জানে যে, মক্কা ও মদীনা শরিফে তারাবিহ নামাজ ২০ রাকাত পড়া হয়, ৮ রাকাত নয়। যাই হউক, মক্কা ও মদিনা শরিফ আমাদের দলিল নয় তারা শুধু একটি হাদিস যেঠা তারা ভুল বুঝিয়ে তাদের গুমরাহি মতামত প্রচার করতে চায় এবং আমিরুল মুমিনিন হযরত উমর (রাঃ)র আমল নিয়ে কুতুক্তি করে থাকে.নাউজুবিল্লাহএরা ফিতনাবাজ গুমরাহ ছাড়া আর কিছুই নেই। তারাবিহ নামাজ কত রাকাত..? এখানে দেখুনpdf





হজ্জ ও ঈদ মুবারক

2 12 2008

hajj mubarak!!

 





শা’বান ও শবে বরাত

2 08 2008

শাবান মাস হিজরী বৎসর ৮ম মাস। রমযান হলো ৯ম মাস। শাবান মাসের ফযিলত অনেক। কেননা, এ মাসটি রমযান শরিফের পূর্ব প্রস্তুতির মাস। এ মাস হলো…………বাকি অংশ এখানে পড়ুনpdf

 

 





মদিনা শরিফে মিলাদ মাহফিল

29 01 2008




সামনে এসেছে টঙ্গীর (মেলা) ইজতেমা

19 01 2008

কিছু দিনের মধ্যে শুরু হবে তাবলিগীদের ইজতেমা। ওরা কি যেন বলে যাতে লোকেরা পাগল হয়ে ওখানে চলে যায়। অনেক আছে যার খাবার নেই, কিন্তূ উনি ও ঐ ইজতেমায় পাগলের মত রওয়ানা দেয়।

আমি নিজেই দুই বার ইজতেমার সময় কালে বাংলাদেশে ছিল। পত্রিকায় এবং তাবলিগীদের থেকে ইজতেমা সম্মন্দ্ধ্যে যেভাবে দাওয়াতের খবর পেলাম, শুনিয়ে আশ্চর্য্য হয়ে গেলাম এবং মনে বুঝ আসলো কেন লোক এত পাগল হয়ে ওখানের দিকে ছোটে।

টঙ্গীর ইজতেমা সম্মন্দ্ধ্যে আমি শুনতে পেলাম :-

  • হজ্জের পড়ে সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ণ কাজ হলো টঙ্গীর ইজতেমায় হাজির হওয়া।
  • টঙ্গীর ইজতেমায় পুরাতন তিন দিন উপস্থিত থাকতে পারলে এক হজ্জের ছওয়াব পাবে।
  • যাদেরকে আল্লাহ হজ্জ্ব করার তৌফিক দেননি, তাদের জন্য টঙ্গীর ইজতেমায় উপস্থিত হওয়া উচিত।

ঐই সব ভন্ড কথা শুনার পরে, নাউজুবিল্লাহি মিন যালিক ছাড়া আর কোন কিছু বলার পাই না।

আরও পড়ুন:-

 

 





আহলে বাইত (আঃ)’র ফযিলত

17 01 2008

ali,lion of allah calligraphy